প্রতিসরণাঙ্ক কাকে বলে? প্রতিসরণাঙ্ক কীসের ওপর নির্ভর করে?

আলোকরশ্মি যখন এক স্বচ্ছ মাধ্যম থেকে অন্য স্বচ্ছ মাধ্যমে তীর্যকভাবে প্রবেশ করে তখন নির্দিষ্ট রঙের আলোর জন্য আপতন কোণের সাইন ও প্রতিসরণ কোণের সাইন-এর অনুপাত যে ধ্রুব সংখ্যা হয় তাকে প্রথম মাধ্যমের সাপেক্ষে দ্বিতীয় মাধ্যমের প্রতিসরণাঙ্ক বলে। একে n দিয়ে প্রকাশ করা হয়। প্রতিসরণাঙ্ক মাধ্যমদ্বয়ের প্রকৃতি ও আলোর রঙের ওপর নির্ভর করে।

 

প্রতিসরণাঙ্কের ইতিহাস

ধারণা করা হয় ১৮০৭ খ্রিষ্টাব্দে থমাস ইয়াং সর্বপ্রথম প্রতিসরাঙ্ক নামটি ব্যবহার করেন। সেই সময় তিনি প্রতিসরাঙ্কের মান প্রচলিত দুটি উপাদানের প্রতিসরাঙ্কের মানের অনুপাতের বদলে একটি সংখ্যা হিসেবে প্রকাশ করেন। অনুপাতের ক্ষেত্রে একই উপাদানের জন্য ভিন্ন ভিন্ন উপাদানের সাপেক্ষে অনুপাতসমূহ ভিন্ন হওয়ায় তা অসুবিধাজনক ছিল। আইজ্যাক নিউটন প্রতিসরাঙ্ককে বলেন, “proportion of the sines of incidence and refraction,” এবং একে দুটি সংখ্যার অনুপাত হিসেবে উল্লেখ করেন, যেমনঃ “529 to 396” (অথবা প্রায় ৪/৩; পানির জন্য)। হক্সবি একে বলেন, “ratio of refraction,” এবং একটি নির্দিষ্ট লবের সাপেক্ষে অনুপাত হিসেবে প্রকাশ করেন, যেমনঃ “10000 to 7451.9” (মূত্রের জন্য)।[৫] হাটন একে নির্দিষ্ট হরের সাপেক্ষে অনুপাত হিসেবে প্রকাশ করেন, যেমনঃ “1.3358 to 1″(পানি)।

 

প্রতিসরণাঙ্ক এর প্রয়োগ

যেকোন আলোকীয় যন্ত্রের উপাদানের প্রতিসরাঙ্ক এর অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য। এর দ্বারা নির্ণয় করা যায় লেন্সের ফোকাস ক্ষমতা, প্রিজমের বিচ্ছুরণ ক্ষমতা, লেন্স আবরণের প্রতিবিম্বন, এবং অপটিকাল ফাইবারের আলোক ধর্ম। যেহেতু প্রতিসরাঙ্ক কোনো উপাদানের অনন্য ভৌত বৈশিষ্ট্য, তাই এটি প্রায়ই ব্যবহার করা হয় কোনো নির্দিষ্ট উপাদান শনাক্তকরণে, এর বিশুদ্ধতা যাচাই, অথবা এর ঘনমাত্রা পরিমাপে। প্রতিসরাঙ্ক ব্যবহার করা হয় কঠিন, তরল ও গ্যাস পরিমাপণে। কোনো জলীয় দ্রবণে দ্রবের ঘনমাত্রা নির্ণয়ে এর ব্যাপক ব্যবহার দেখা যায়। এছাড়াও প্রতিসরাঙ্ক দ্বারা বিভিন্ন ধরনের রত্ন-পাথরের মধ্যে প্রভেদ করা হয়। রিফ্রাকটোমিটার দ্বারা কোনো উপাদানের প্রতিসরাঙ্ক পরিমাপ করা হয়। চিনির কোনো দ্রবণের জন্য প্রতিসরাঙ্ক হতে সে দ্রবণের চিনির পরিমাণ নির্ধারণ করা যায়।

Leave a Comment