মিশ্র কৃষি কাকে বলে? মিশ্র কৃষির সুবিধা ও অসুবিধা কি?

অনুকূল প্রাকৃতিক ও সাংস্কৃতিক পরিবেশের সুযোগ নিয়ে যে বানিজ্যিক কৃষি ব্যবস্থায় একই কৃষি খামারে কৃষি জমি থেকে ফসল উৎপাদনের সাথে সাথে পশুপালন ও হাঁস, মুরগি প্রতিপালন এবং ফল ও শাক সবজি উৎপাদন করা হয়, তাকে মিশ্র কৃষি বলে।

অবস্থানঃ পৃথিবীর অধিকাংশ মিশ্রকৃষি অঞ্চল নাতিশীতোষ্ণ জলবায়ু অঞ্চলে অবস্থিত।

 

মিশ্র কৃষির বৈশিষ্ট্য

  • শস্যাবর্তনঃ ফসল উৎপাদনে শস্যাবর্তন পদ্ধতি অবলম্বিত হয়। এই পদ্ধতিতে একই জমিতে বছরের বিভিন্ন ঋতুতে বিভিন্ন ফসলের চাষ করা হয়ে থাকে।
  • কৃষিজোতঃ মিশ্রকৃষি অঞ্চলের কৃষি জোত গুলি মাঝারি থেকে বৃহৎ আকৃতির হয়ে থাকে। কারণ এই কৃষিতে একই কৃষিকাজের পাশাপাশি পশুপালন করা হয় বলে বড়ো আকৃতির জমির প্রয়োজন হয়।
  • ঝুঁকিহীন লাভজনক কৃষিঃ বছরের বিভিন্ন সময় বিভিন্ন দ্রব্যের উৎপাদন হওয়ায় বাজারে কোণ না কোণ দ্রব্যের চাহিদা সবসময় থাকে। তাই কৃষকেরা তা বাজারে বিক্রি করে অর্থ উপার্জন করে।
  • উদ্বৃত্ত ফসলঃ এই মিশ্র কৃষি মূলত বাজারে বিক্রি করে মুনাফা অর্জনের জন্য করা হয় বলে কৃষিজ দ্রব্য ও পশুজাত বিভিন্ন  উপাদান প্রচুর পরিমানে উদ্বৃত্ত থাকে।
  • শ্রম নিবিড় কৃষিঃ সারা বছর ধরে বিভিন্ন ফসলের চাষ ও তার সাথে পশুপালনও করা হয় বলে মিশ্র কৃষিতে প্রচুর শ্রম শক্তির প্রয়োজন হয়ে থাকে। সারা বছর ধরে কাজের জোগান থাকে বলে ছদ্ম বেকারত্বের সৃষ্টি হয় না।
  • যন্ত্রপাতিঃ এই কৃষিতে  অনেক ছোট বড় বিভিন্ন যন্ত্রপাতির প্রয়োজন হয় এবং এই মিশ্র কৃষি অঞ্চলের শ্রমিকরা শিক্ষিত হওয়ায় আধুনিক যন্ত্রপাতি ব্যবহারে তেমন কোণ অসুবিধা হয় না।
  • জমির উর্বরতাঃ এই কৃষিতে শস্যাবর্তন পদ্ধতিতে এবং জৈব সারের ব্যবহারের মাধ্যমে চাষ করা হয় বলে, জমির উর্বরতা হ্রাস পায় না।

 

মিশ্র কৃষির সুবিধা

  • মিশ্র কৃষিতে জমিকে সর্বদা চাষের কাজে ব্যবহার করা হয় বলে জমির শস্য প্রগাঢ়তা বৃদ্ধি পায়।
  • মিশ্র কৃষির ক্ষেত্রে একই সাথে বিভিন্ন প্রকারের ফসল ও হাঁস, মুরগি, গরু প্রতিপালন করা হয় বলে, কৃষক দের ঝুঁকির পরিমাণ হ্রাস পায়।
  • এই কৃষি প্রণালী থেকে কৃষকদের লাভের পরিমাণ বৃদ্ধি পায়।
  • মিশ্র কৃষিতে শস্যাবর্তন পদ্ধতির প্রয়োগ করা হয় বলে জমির উর্বরতা বজায় থাকে। এছাড়া কৃষি খামারের গবাদি পশুর বর্জ্য জৈব সার হিসেবে ব্যবহৃত হওয়ায় রাসায়নিক সারের ব্যবহারের পরিমান হ্রাস পায়।
  • মিশ্র কৃষি প্রচলিত অঞ্চলের কৃষক রা আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত এবং তারা উন্নত আধুনিক প্রযুক্তি ও বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি ব্যবহারের মাধ্যমে কৃষি কাজ করে বলে প্রচুর পরিমাণ ফসল উৎপাদন করতে সক্ষম হয়।
  • এই কৃষিতে একটি কৃষি খামারে একই সাথে বিভিন্ন রকমের ফসল, শাক সবজি, ফল চাষ ও গবাদি পশু প্রতিপালন করা হয় বলে সারা বছর ধরে কাজের সুযোগ সৃষ্টি হয়।

 

মিশ্র কৃষির অসুবিধা 

  • একই সাথে কৃষিকাজ ও পশু পালন করা হয় বলে, সীমিত ক্ষমতার অভাবে অনেক সময় প্রতি দিকে সঠিক পরিচর্যা করা সম্ভব হয় না বলে উৎপাদনের পরিমাণ হ্রাস পায়।
  • মিশ্র কৃষি এক প্রকার মূলধন নিবিড় কৃষি, কারণ একই সাথে বিভিন্ন ফসলের চাষ ও গবাদি পশু প্রতিপালন প্রচুর অর্থের প্রয়োজন হয়। যা অনুন্নত বা উন্নয়ন দেশগুলির পক্ষে জোগান দেওয়া সম্ভব হয় না।
  • মিশ্র কৃষি মূলত নাতিশীতোষ্ণ জলবায়ু অঞ্চলের দেশগুলিতেই গড়ে ওঠে, তাই এই অঞ্চল ব্যতীত উষ্ণ আর্দ্র জলবায়ু অঞ্চলের দেশ গুলিতে এই কৃষি ব্যবস্থার বিকাশ ঘটানো সম্ভব হয় না।
  • একটি কৃষি খামারে একই সাথে বিভিন্ন ফসল ফসলের চাষ করা হয়, যার জন্য অনেক সময় প্রতিটি ফসলের ক্ষেত্রে ভিন্ন ভিন্ন ভাবে সার ও কীটনাশক প্রয়োগ করতে অসুবিধার সম্মুখীন হতে হয়।
  • উন্নয়ন শীল দেশগুলির কৃষক রা আধুনিক বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি ব্যবহারে অপারগ হওয়ায় এই সব দেশ গুলিতে মিশ্র কৃষির প্রচলন সম্ভব হয় না।
  • মিশ্র কৃষি ব্যবস্থায় যে বিস্তৃত বা বৃহদায়তন খামারের প্রয়োজন হয়, তা অনেক দেশেই পাওয়া যায় না।

Leave a Comment