HomeICTডিজিটাল ক্লাসরুম কি? ডিজিটাল ক্লাস তৈরি করার জন্য কী কী করণীয়?

ডিজিটাল ক্লাসরুম কি? ডিজিটাল ক্লাস তৈরি করার জন্য কী কী করণীয়?

ডিজিটাল ক্লাসরুম হলো এমন এক ধরনের প্রযুক্তি নির্ভর শ্রেণিকক্ষ যেখানে শিক্ষাদানের বিষয়টি পুরোপুরি আইসিটি ফিচারসমূহ ব্যবহার করে পরিচালিত হয়ে থাকে। এর অনেকগুলো ভিন্ন ভিন্ন রূপ রয়েছে যেমন ফ্লিপড ক্লাসরুম, ব্লেন্ডেড লার্নিং এবং স্মার্ট ক্লাসরুম। তবে এই টার্মগুলোর প্রতিটির পৃথক কিছু বৈশিষ্ট্য আছে। যেমন ফ্লিপড ক্লাসরুম হলো এমন একটি লার্নিং সিস্টেম যেখানে শিক্ষার্থীরা অনলাইনে ইনস্ট্রাকশন গ্রহণ করে এবং তাদের অর্জিত জ্ঞান সরাসরি শ্রেণিকক্ষে, এসে প্রয়োগ করে। আবার ব্লেন্ডিং লার্নিং এর ক্ষেত্রে ফেস-টু-ফেস লার্নিং এর পাশাপাশি অনলাইন ইন্সট্রাকশনের সমন্বয় ঘটানো হয়। এই অনলাইন ইন্সট্রাকশন বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া, অনলাইন প্লাটফরম এবং টুলস এর মাধ্যমে প্রদান করা হয়ে থাকে।

 

ডিজিটাল ক্লাস তৈরি করার জন্য কী কী করণীয়?

ক্লাসরুমে ইন্টারনেট ও অন্যান্য আইসিটি নির্ভর যন্ত্রাংশ ব্যবহার করে ‘ডিজিটাল ক্লাস’ তৈরি করা যায়। ক্লাসরুমে ছবি, অডিও-ভিডিও এনিমেশন ইত্যাদি ব্যবহারের মাধ্যমে শিক্ষাকে আরও আকর্ষণীয় করা যায়। ক্লাসে ইন্টারনেটের ব্যবহার সহজলভ্য করা এবং শিক্ষাদান প্রক্রিয়ায় ডিজিটাল প্রযুক্তির ব্যবহার একটি ক্লাসকে অনেক কার্যকর করে তোলে। ই-বুক, প্রজেক্টর প্রভৃতির ব্যবহার ডিজিটাল ক্লাসে ব্যবহার করতে হবে।

 

ডিজিটাল ক্লাসরুম উপকরণ

ডিজিটাল ক্লাসরুম ব্যবহারের ফলে যেকোন পাঠ্য বিষয় শিক্ষার্থীরা এখন খুব সহজেই বুজে নিতে পারছে যার ফলে তারা মুখস্ত পড়া থেকে নিজেকে বের করে এনে বুজে পরার দিকে মনোনিবেশ করছে। এতে শিক্ষার্থীরা যেমন আনন্দ নিয়ে পড়তে পারছে তেমনি শিক্ষকরাও খুব সহজেই যে কোন বিষয় বুজিয়ে দিতে পারছে।

শিক্ষা ও শিক্ষার্থীর মাঝে পারষ্পরিক মিথষ্ক্রিয়াকে ত্বরান্বিত করার অন্যতম মাধ্যম হলো শ্রেণীকক্ষে প্রযুক্তির ব্যবহার। এখন প্রশ্ন হলো, শ্রেণীকক্ষে শিক্ষণ-শিখন কার্যক্রম পরিচালনার ক্ষেত্রে কোন কোন প্রযুক্তি আমরা শ্রেণীকক্ষে ব্যবহার করতে পারি বা একটি ডিজিটাল ক্লাসের কি কি উপকরণ প্রয়োজন?

১/ ল্যাপটপ বা কম্পিউটার : ডিজিটাল ক্লাস পরিচালনার জন্য অবশ্যই কিছু সফটওয়্যার ভিত্তিক এনিমেশন, অডিও , ভিডিও চালানোর জন্য কম্পিউটার প্রয়োজন যা একটি ডিজিটাল ক্লাসে অবশ্যই থাকতে হবে। বর্তমানে ল্যাপটপ প্রাইস খুবই কম এবং মধ্যম মানের একটি ল্যাপটপ দিয়েই এসব কাজ খুব সহজেই পরিচালনা করা যাবে।

২/ প্রজেক্টর : প্রজেক্টরের মাধ্যমে সকল শিক্ষার্থীরা খুব সহজেই কম্পিউটারের স্কিনটা বড় পর্দায় দেখতে পাবে। বাজারে অনেক ধরনের প্রজেক্টর পাওয়া যায়, প্রজেক্টরের দাম এর কথা চিন্তা করলে ৫ থেকে ১০ হাজার টাকার মধ্যেই আধুনিক একটি মানসম্মত প্রজেক্টর পাওয়া যাবে।

৩/ হোয়াইটবোর্ড : গতানুগতিক ক্লাসগুলোতে আমরা সাধারণত ব্লাকবোর্ড ব্যবহার করতে দেখেছি তবে ডিজিটাল ক্লাসগুলোতে অবশ্যই হোয়াইটবোর্ড ব্যবহার করা হয়।

৪/ মাইক্রোফোন : মাইক্রোফোনের মাধ্যমে শিক্ষক বা শিক্ষার্থীরা কথা বলতে পারবে । এটিও একটি ডিজিটাল ক্লাসরুমের অন্যতম উপকরণ।

৫/ স্পিকার : বিভিন্ন অডিও শোনার জন্য স্পিকার প্রয়োজন এবং শিক্ষক মাইক্রোফোনে কিছু বললে সেটিও স্পিকারে শোনা সম্ভব। স্পিকারের প্রাইস হাতের নাগালেই রয়েছে যা সাধারণত ২-৩ হাজারের মতো।

৬/ ইন্টারনেট সংযোগ : অনেক সময়ই শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন বৈজ্ঞানিক কাহিনী বা মাহাবিশ্ব ব্যাপারগুলোর বাস্তব ইমেজ বা ভিডিও দেখানোর দরকার হতে পারে তখন ইন্টারনেট থেকে সেই বিষয়গুলো দেখানোর জন্য অবশ্যই ইন্টারনেট সংযোগ থাকতে হবে।

 

Tags :

  • ডিজিটাল ক্লাসরুম কাকে বলে
  • ডিজিটাল ক্লাস তৈরি করার জন্য কি কি প্রয়োজন
RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

Recent Comments