HomeTechnologyরোবট কি? রোবট ব্যবহারের সুবিধা ও অসুবিধা কি?

রোবট কি? রোবট ব্যবহারের সুবিধা ও অসুবিধা কি?

রোবট হলো কম্পিউটার নিয়ন্ত্রিত যন্ত্র বা যন্ত্রমানব যা মানুষের অনেক দুঃসাধ্য ও কঠিন কাজ করতে পারে। রোবট এমন একটি যন্ত্র যা কখনো সম্পূর্ণরূপে বা অংশত মানুষকে নকল করবে; কখনো চেহারায়, কখনো কাজের মধ্যে দিয়ে, কখনো আবার দু’ভাবেই। কিছু কিছু রোবট শুধু প্রোগ্রাম অনুসারেই কাজ করে আবার অনেকগুলোকে দূর থেকে লেজার রশ্মি বা রেডিও সিগন্যালের সাহায্যে নিয়ন্ত্রণ করা যায়।

শিল্পক্ষেত্রে কঠোর শারীরিক পরিশ্রমের বা বিপজ্জনক ও জটিল কাজগুলো রোবটের সাহায্যে করা যায়। কারখানায় কম্পিউটার নিয়ন্ত্রিত রোবটের সাহায্যে নানারকম বিপজ্জনক ও পরিশ্রমসাধ্য কাজ; যেমন: ওয়েল্ডিং, ঢালাই, ভারী মাল ওঠানো বা নামানো, যন্ত্রাংশ সংযোজন ইত্যাদি করা হয়। রোবট অতিক্ষুদ্র মাইক্রো সার্কিটের উপাদান পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে পরীক্ষা করতে পারে যা করা মানুষের দ্বারা কঠিন এবং অসম্ভব। শিল্প কারখানায় ব্যবহৃত অনেক রোবটের অবয়ব মানুষের মতো নয়। সেখানে ব্যবহৃত রোবটগুলোর এক বা একাধিক কর্মক্ষম বাহু থাকতে পারে যা নির্দেশ অনুসারে কাজ করে যায়।

পারমাণবিক কেন্দ্রে ক্ষতিকর তেজস্ক্রিয়তায় যে সব কর্মী কাজ করেন তাদের ঝুঁকি অনেক। এসব ঝুঁকিপূর্ণ কাজে রোবট মানুষের বদলে কাজ করতে পারে। উন্নত বিশ্বের অনেক দেশের কল-কারখানায় রোবট ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হচ্ছে। বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব্যবস্থাপনায় নিরাপত্তার জন্য রোবট ব্যবহৃত হয়। মাইক্রোওয়েভ ভিশনের মাধ্যমে যেকোনো ক্ষতিকর বিস্ফোরক সনাক্ত করা ও তা নিস্ক্রিয় করার কাজে অনেক রোবটিক ডিভাইস ব্যবহার করা হয়।

কিছু কিছু রোবট হাটতে পারে এবং মানুষের সাথে কথা বলতে পারে। রুটিনমাফিক ঘরের প্রাত্যহিক অনেক কাজকর্ম; যেমন: কফি তৈরি করা, ঘর পরিষ্কার করা ইত্যাদি কাজে রোবটকে ভৃত্যের মতো ব্যবহার করা যায়। যেকোনো সমস্যায় নিজ থেকে সিদ্ধান্ত নিয়ে কাজ করার জন্য মানুষের মতো রোবটে কৃত্রিম বুদ্ধি দিয়ে গড়ে তোলা হচ্ছে। জাপানের সনি কর্পোরেশনের আইবো (Aibo), হোন্ডা কোম্পানির আসিমো (Asimo), এবং মুরাতা কোম্পানির মুরাতা বয় (Murata Boy), ইত্যাদি রোবট প্রায় মানুষের মতই অনেক কাজ করতে পারে।

  • সোফিয়া (Sophia) মানুষের মতো কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন সামাজিক যোগাযোগ সক্ষম নারী রোবট। হংকং ভিত্তিক প্রতিষ্ঠান হ্যানসন রোবটিক্স এটি তৈরি করে। রোবটিকে এমনভাবে নকশা করা হয় যাতে সে মানুষের আচরণের সাথে খাপ খাইয়ে নিতে ও শিখতে পারে। ২০১৭ সালের অক্টোবর মাসে রোবটটিকে সৌদি আরব নাগরিকত্ব দেয়। সোফিয়া বিশ্বের প্রথম রোবট হিসেবে কোন দেশের নাগরিকত্ব অর্জন করে। ২০১৭ সালের ৫ ডিসেম্বর রোবট সোফিয়া বাংলাদেশ সফরে এসেছিল।

 

রোবট কীভাবে কাজ করে?

রোবট হচ্ছে কম্পিউটার নিয়ন্ত্রিত একটি স্বয়ংক্রিয় যন্ত্র যা মানুষের নির্দেশ মতো কাজ করে। রোবটের যান্ত্রিক সংগঠনের সঙ্গে একটি চিপ সংযুক্ত করা থাকে। এই চিপে প্রোগ্রাম সেট করে দেওয়া হয়। এসব প্রোগ্রাম অনুসারেই রোবটের দেহের বিভিন্ন অংশ গতিশীল হয় এবং নিয়ম মাফিক কাজ করে থাকে।

 

রোবট এর প্রকারভেদ (Types of Robot)

রোবটকে দুই ভাগে ভাগ করা যায়। যথা:

  1. অটোনোমাস রোবট : যে সমস্ত রোবটকে পরিচালনার জন্য মানুষের কিছু নিয়ন্ত্রণ ও পরিচালনা প্রয়োজন হয় না স্বয়ংক্রিয়ভাবে প্রোগ্রাম অনুসারে সকল কাজ সম্পন্ন করে তাকে অটোনোমাস রোবট বলে।
  2. সেমি অটোনোমাস রোবট : যে সমস্ত রোবটকে পরিচালনার জন্য মানুষের কিছু নিয়ন্ত্রণ ও পরিচালনা প্রয়োজন হয়, সেগুলোকে আধা-স্বয়ংক্রিয় বা সেমি অটোনোমাস রোবট বলে।

 

রোবটের ব্যবহার (Use of Robot)

বর্তমান বিশ্বে বিভিন্ন ক্ষেত্রে রোবটকে ব্যবহার করা হচ্ছে। যেমন–

  • শিল্পের বিপজ্জনক ও কঠিন কাজে
  • বৃহৎ মেশিনের কষ্টদায়ক যন্ত্রপাতির সংযোজনে
  • খনি হতে বিভিন্ন বিষাক্ত পদার্থ উত্তোলনে
  • মহাকাশ গবেষণায় রোবট ব্যবহৃত হচ্ছে
  • মহাশূন্যের ছবি সংগ্রহে
  • ক্ষতিকর বিস্ফোরক সনাক্তকরণে
  • গৃহস্থালীর কাজে রোবট ব্যবহৃত হচ্ছে
  • গভীর অরণ্য কিংবা বহুদূরত্বে শত্রুর উপস্থিতির প্রমাণে
  • শিল্প কারখানায় দ্রুত উৎপাদন কার্য হাসিলে রোবটের ব্যবহার হচ্ছে; ইত্যাদি।

 

রোবটের সুবিধা (Advantages of Robot)

  • বিভিন্ন শিল্পকারখানায় যেসব জিনিসপত্র মানুষের পক্ষে ওঠানামা করানো বা স্থাপনের জন্য কঠিন সেসব ক্ষেত্রে রোবট ব্যবহার করা যায়।
  • কারখানার জিনিসপত্র সংযোজন, প্যাকিং এবং জিনিসপত্র পরিবহনের জন্য রোবট ব্যবহার ফলপ্রসূ।
  • যুদ্ধক্ষেত্রে যুদ্ধযানে ড্রাইভারের বিকল্প হিসেবে রোবটকে ব্যবহার করা যায়। এই সমস্ত রোবট দূর নিয়ন্ত্রিত হওয়ায় যেকোনো মুহূর্তে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হয়।
  • চিকিৎসা ক্ষেত্রে সার্জারির কাজে রোবট সফলভাবে ব্যবহার করা সম্ভব হয়েছে।
  • বিরক্তিকর ও একঘেয়ে কাজের ক্ষেত্রে।
  • বিপজ্জনক কাজের ক্ষেত্রে।
  • দুর্গম স্থানের কাজের ক্ষেত্রে।
  • বিনোদন, গবেষণা ও শিক্ষা ক্ষেত্রে।

 

রোবটের অসুবিধা (Disadvantages of Robot)

  • মানুষের মতো পরিস্থিতি বিবেচনা করে নিজের বুদ্ধি খাটিয়ে কাজ করতে পারে না। ফলে একটি রোবট দিয়ে ইচ্ছামতো বিভিন্ন কাজ করা যায় না।
  • রোবটিক্স যন্ত্রপাতি ক্রয় করতে প্রয়োজন হবে যথেষ্ট পরিমাণ অর্থের এবং রক্ষণাবেক্ষণের জন্য দক্ষ লোক প্রয়োজন। ফলে এটি ব্যবহুল।
  • রোবটকে সচল রাখতে অধিক বিদ্যুৎতের প্রয়োজন হয়।

 

রোবট এর গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা (Importance and Necessity of Robot)

  • শিল্প-কারখানার পণ্য তৈরিতে যেমন: উৎপাদন, সংযোজন, প্যাকিং এবং পরিবহনের জন্য রোবটের অবদান অনস্বীকার্য। বর্তমানে গাড়ী ও বিমান শিল্পে রোবটের সফল ব্যবহার করা হচ্ছে এবং শীল্পটি লাভবান হচ্ছে।
  • যুদ্ধক্ষেত্রে যুদ্ধযানের ড্রাইভারের বিকল্প হিসাবে রোবটের ব্যবহার করা হচ্ছে। এ রোবটগুলি খুবই দক্ষ ও চাক্ষুষ হয়।
  • চিকিৎসা বিজ্ঞানে রোবটের ব্যবহার একটি বড় ফলপ্রসু হয়ে উঠেছে। যেমন: সার্জারির কাজে রোবটকে বেশ সফলভাবে ব্যবহৃত হচ্ছে।
  • বিভিন্ন বিপদজনক ও ঝঁকিপূর্ণ কাজে মানুষের বদলে রোবটকে ব্যবহৃত হচ্ছে।
  • আজকের বিশ্বে রোবটকে নিরাপত্তার কাজেও সফলতার সাথে ব্যবহার করা হচ্ছে।
  • বাসা-বাড়ীতে কাজের লোকের বিপরীত হিসাবে রোবটের ব্যবহার করা হচ্ছে।
  • Robot নিখুঁততার সাথে কাজ করে অর্থৎ রোবটগুলি সর্বদা গুণগত মান সরবরাহ করে। যেহেতু তারা সুনির্দিষ্ট, পুনরাবৃত্তি গতির জন্য প্রোগ্রম করা হয়েছে, তাই তাদের ভুল হওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে। তাই বর্তমান বিশ্বে রোবটের ব্যবহার খুব দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে।
RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

Recent Comments